মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৫ মে ২০১৭

সীপকস

সীমান্ত পরিবার কল্যান সমিতির নীতিমালা-২০১২

ভুমিকা
১। ‘সীমান্ত পরিবার কল্যান সমিতি’ (সীপকস)বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ পরিবারের নারী ও শিশু সদস্যদের সার্বিক কল্যাণে নিবেদিত একটি শিক্ষামুলক ও কল্যানমুখী প্রতিষ্ঠান। সভ্যতার ক্রমবিকাশে বাংলাদেশের নারীরা ও আজ পুরুষের পাশাপাশি সামনে এগিয়ে চলেছে। বর্ডার গার্ড পরিবারের মহিলা সদস্যদের মধ্যে মেধা ও প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে তাদেরকে আত্মমর্যদাশীল ও সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার ক্ষেত্রে এই সমিতি কল্যানী ভুমিকা রাখবে। বিজিবিতে কর্মরত ব্যক্তিবর্গের স্ত্রী, কন্যা, বোন ও পোষ্যগন এই সীপকসের সদস্য হয়ে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সুবিধাদি লাভ করবেন। তাই সীপকস কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য একটি সহজ ও স্বচ্ছ Guideline বা নীতিমালা প্রস্ত্তত ও প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহন করা। কেন্দ্রীয় সীপকস সহ শাখা/উপশাখা সমুহের দিক নির্দেশনার ক্ষেত্রে এটি মুখ্য ভুমিকা রাখবে। এ নীতিমালা সকলে যথাযথভাবে অনুসরণ করলে ‘সীপকস’ এর কার্যক্রমে গতিশীলতা, স্বচ্ছতা ও নিয়মতান্ত্রিকতা আসবে এবং সুষ্ঠভাবে সমিতির কার্যক্রম চালানো যাবে বলে আমাদের বিশ্বাস।
উদ্দেশ্য ।
২। বর্ডার গার্ড পরিবারের মহিলা সদস্যদেরকে বিভিন্ন কারিগরী বিষয়ে প্রশিক্ষিত করে আত্ম নির্ভরশীল ও সামাজিক ভাবে স্বাবলম্বী করে তোলা। লক্ষ্য । 
৩। সীপকসের বৃহত্তর উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য আমরা কিছু লক্ষ্য নির্বাচন করেছি যা নিম্নরুপঃ

ক। বিজিবি পরিবারের মহিলা ও শিশুদের সীপকস প্রশিক্ষন কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতে উৎসাহ প্রদান করা । 
খ । সীপকস নারী ও শিশুদের জন্য একটি বন্ধুত্বপূর্ন ও নিরাপদ পরিবেশ তৈরী করা।
গ । ব্যক্তিগত মান উন্নয়ন সহায়ক ও অকর্ষীনীয় প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম পরিকল্পনা করা।
ঘ । উচ্চশিক্ষিত ও উৎসাহী অফিসার পত্নীদের সীপকস প্রমিক্ষণ ও প্রশাসন কার্যক্রমে অংশগ্রহন করানো।
ঙ । স্বল্প মেয়াদী ও কার্যকরী প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিকল্পনা করা।
চ । যে সব প্রশিক্ষণে খরচ বেশী ও বিশেষজ্ঞ প্রশিক্ষক ও ট্রেনিং সুবিধা প্রয়োজন হয় এমন সাবজেক্ট সীপকসে প্রশিক্ষণ দেয়া।
ছ । এমন প্রশিক্ষনে জোর দেয়া যা শিক্ষার্থীদের আত্মবিশ্বাসী করে পাশাপাশি অর্থ উপাজর্নে ও সাহায্য করে।
জ । সুন্দর একটি শিক্ষা পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে পারস্পরিক সম্পর্ক বন্ধন ও উন্নয়ন করা।
ঝ । উন্নত মানের প্রশিক্ষণ সামগ্রী ও সুবিধাসমুহ সীপকসে রাখা যা সাধারনতঃ ব্যক্তিগত বাসস্থানে সম্ভব নয়।
ঞ । প্রতিদ্ধন্ধীতামুলক সমাজে কার্যকরী সাবজেক্ট এবং নতুন টেকনোলজি সমুহ সীপকসে প্রশিক্ষণ প্রদান করা। সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির সংগঠন।

৪ । মাননীয় মহাপরিচালক, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এই সমিতির প্রধান উপদেষ্টা এবং তার সহিধর্মিনী প্রধান পৃষ্টপোষক। সীপকস মুলতঃ অফিসার পত্মীদে র পরিচালনায় চলবে। প্রতিটি কেন্দ্রে ১/২ জন সমন্বয়কারী অফিসার ও কিছু সৈনিক এর সমন্বয়ে অন্যান্য সদস্য সংগঠিত হবে। সীপকস পর্ষদের সদস্যাবৃন্দ প্রধান পৃষ্ঠপোষকের নির্দেশনাক্রমে সীপকস এর দায়িত্ব সমুহ পালন করবেন। সীমান্ত পরিবার কল্যান সমিতি নিম্নবর্ণিত স্তরে সংগঠিত হবেঃ

ক । কেন্দ্রীয় সীপকস, পিলখানা, ঢাকা।
খ ।শাখা সীপকস (সেক্টর পর্যায়ে)(বিজিটিসিএন্ডএস সহ ১২টি শাখা সীপকস)।
গ । উপশাখা সীপকস (ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে)(২৮টি উপশাখা সীপকস) ।

কেন্দ্রীয় সীপকস এর পরিচালনা পর্ষদ ও সংগঠন।
পিলখানাস্থ সীপকস কেন্দ্রীয় সীপকস হিসাবে কাজ করবে। মহাপরিচালক মহোদয়ের সহধর্মিনী যথারীতি প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসাবে এর সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতা করবেন। এটা হবে সকল শাখা/ উপশাখা সীপকসের মুল চালিকা কেন্দ্র ও এর মাধ্যমেই প্রধান পৃষ্ঠপোষকতা তার নির্দেশনা, সমন্বয় ও পরিচালনা সম্পন্ন করবেন।

ক । পরিচালনা পর্ষদ ও সদস্যগণঃ

(১) সভানেত্রী - অতিরিক্ত মহাপরিচালকের সহধর্মীনী।
(২) সহ সভানেত্রী - যে কোন একজন উপ-মহাপরিচালকের সহধর্মিনী।
(৩) সাধারণ সম্পাদিকা - পিলখানাস্থ গ্রেড-১/পরিচালকের সহধর্মিনী।
(৪) কোষাধ্যক্ষা - লেঃ কর্ণেল/মেজর পদবীর অফিসারের সহধর্মিনী।
(৫) সদস্যা (দুইজন) - ০২ জন উৎসাহী অফিসারের সহধর্মিনী। (চিলড্রেন ক্লাব পরিচালনাকারী)
(৬) সমন্বয়কারী অফিসার - পি এস টু ডিজি (জি এসও -২ কর্ড), মহাপরিচালকের সচিবালয় অথবা প্র্ধান পৃষ্ঠপোষক কর্তৃক নির্বাচিত যে কোন অফিসার ।

খ। কেন্দ্রীয় সীপকস পরিচালনা পর্ষদের দায়িত্ব ও কর্তব্যা। কেন্দ্রীয় সীপকস পরিচালনা পর্ষদের দায়িত্ব ও কর্তৃব্য ক্রোড়পত্র ‘ক’ তে সন্নিবেশিত করা হলো।
গ। কর্ম পদ্ধতি । পরিচালনা পর্ষদ সদস্যরা পর্যায় ক্রমে উপস্থিত থেকে সরাসরি কেন্দ্রীয় সীপকসের কার্যবলী পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রন করবেন। সীপকসের প্রসাশন, প্রশিক্ষন, প্রশিক্ষন সামগ্রী ক্রয়, তৈরী পন্য বিক্রয়, সভা আহবান, সমন্বয় সাধন ইত্যাদি বিষয়ে প্রত্যক্ষভাবে নির্দেশনার মাধ্যমে ও সমন্বয় কারী অফিসারের সহযোগিতায় কর্মদিবস পরিচালনা করবেন। সকল বিষয়ে প্রধান পৃষ্ঠপোষকের নির্দেশনা ও সম্মতি্ক্রমে কেন্দ্রীয় সীপকস পরিচালিত হবে। সমন্বয় সাধনের জন্য প্রধান পৃষ্ঠপোষকের নির্দেশে বছরে এক/দুই বার সভানেত্রী লেভেল এবং দুই পর্যায়ে (৫০% সহ- সভানেত্রী প্রথমবার ও বাকি ৫০% সহ-সভানেত্রী ২য় বার)একবার সহ- সভানেত্রী লেভেল সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রীয় সীপকস ও শাখা কর্তৃক সভা পরিকল্পনা ও পরিচালনা পদ্ধতি ক্রোড়পত্র ‘খ’ তে সন্নিবেশিত করা আছে।

প্রশিক্ষণ ।
৬ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এ কর্মরত সদস্যদের পরিবারবর্গের স্ত্রী, কন্যা, বোন ও পোষ্যগণদের আত্মনির্ভরশীল ও স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে সীপকস বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে থাকে।এ প্রশিক্ষণ বিষয়ক নীতিমালা কেন্দ্রীয় ও শাখা/উপশাখার জন্য প্রযোজ্য হবে।প্রশিক্ষণের স্থান হবে প্রতিটি সীপকস বিল্ডিং বা সমিতি ভবন অবকাঠামোর মধ্যেই। তবে কোথাও শেড বা স্থানীয়ভাবে কোন প্রশিক্ষণ ক্লাসের ব্যবস্থা হলে তাতেই প্রশিক্ষণ পরিচালিত হবে। এক্ষেত্রে ছাত্রী ও প্রশিক্ষকের আরামদায়ক বসার স্থান, প্রশিক্ষণ সামগ্রী স্থাপন ও পরিচালনায় ব্যবস্থা থাকা বাঞ্ছনীয় । প্রশিক্ষণ বিষয় সমুহ (সকল কেন্দ্রের জন্য)
৭। সীমান্ত পরিবার কল্যাণ সমিতির তত্ত্বাবধানে পরিচালিত প্রশিক্ষণ সমুহ নিম্নরুপঃ

ক। দর্জি (সেলাই/কাটিং) ।
খ। সুন্দরসুচী (এ্যাম্ব্রয়ডারী) ।
গ। ডাইং, ব্লক, বাটিক, স্প্রে ও স্ক্রীন প্রিন্টিং ।
ঘ। বেসিক/এ্যাডভান্স কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ।
ঙ। Spoken English Course. Customs & Etiquetts, Mannerism and Motivational Subjects (Human quality development)
ছ। মাশরুম চাষ ।
জ। চিকিৎসা বিষয়ক প্রশিক্ষণ (সচেতনামুলক /শিক্ষামুলক) ।
ঝ। চিলড্রেন ক্লাবের প্রশিক্ষণ ।
ঞ। যে কোন নতুন বিষয় যা যুগোপযোগী ও কার্যকরী ।

 


Share with :
Facebook Facebook